কুমারী পূজায় ৬ বছরের বালিকা—এবার হবে ‘শত্রুনাশ’

আজ বুধবার (১৩ অক্টোবর) মহাষ্টমী। এ মহাষ্টমীর প্রধান আকর্ষণ ‘কুমারী পূজা’। প্রতিবছরের মতো এবারও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে কুমারী পূজা।

কুমারী পূজায় কে হবেন দেবী, তাঁর বয়স কত হবে, কোন নামে তিনি পূজিত হবেন— তা নিয়ে বাড়তি একটা কৌতুহল থাকে। অবশেষে সেই কৌতহলের সমাপ্তি হয়েছে।

এবার কুমারী পূজার আসন অলংকৃত করেন ৬ বছরের প্রীতি ধর। ৬ বছর হওয়ায় এবার তাঁর শাস্ত্রীয় নাম ‘উমা’। শাস্ত্রমতে, উমা নামে কুমারী পূজা হলে ‘শত্রুনাশ’ হয়।

বুধবার (১৩ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০টায় নগরের পাথরঘাটা রাধাগোবিন্দ ও শান্তনেশ্বরী মাতৃ মন্দিরে এই কুমারী পূজার আয়োজন করা হয়। এতে পৌরহিত্য করেন শ্রীমৎ শ্যামানন্দ দাস মোহন্ত মহারাজ। পূজারী ছিলেন বৈষ্ণব বলরাম দাস। তন্ত্রধার ছিলেন দেবব্রত নাথ (জুয়েল)।

আরও পড়ুন: বোধন আজ, ষষ্ঠীও : দেবীর ঘোড়ায় আগমন—দোলায় গমন, বাড়বে রাজনৈতিক অস্থিরতা

কুমারী পূজা

মন্দির সূত্রে জানা যায়, কুমারী প্রীতি ধর নগরের পাথরঘাটা সেন্ট স্কলাসটিকা স্কুলে কেজি শাখার শিক্ষার্থী। তাঁর বাবার নাম মিন্টু ধর। তিনি একজন ব্যবসায়ী। মা পলি ধর গৃহিণী। তারা সাতকানিয়ার উপজেলার বাসিন্দা হলেও থাকেন পাথরঘাটা আশরাফ আলী রোড এলাকায়।

আরও পড়ুন : আজ মহাষ্টমী, সবার চোখ শান্তনেশ্বরী মন্দিরে—১৬ নামের কোনটিতে কুমারী পূজা?

মেয়ে কুমারী পূজার জন্য মনোনীত হওয়ায় ভীষণ খুশি বাবা মিন্টু ধর ও মা পলি ধর। প্রীতকে পূজায় অংশ নেওয়ার সুযোগ দেওয়ায় তাঁরা নিজেদের সৌভাগ্যববান মনে করছেন।

কুমারী পূজা সম্পর্কে শ্রীমৎ শ্যামানন্দ দাশ মোহন্ত মহারাজ আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, কুমারী আদ্যাশক্তি মহামায়ার প্রতীক। দুর্গার আরেক নাম কুমারী। কুমারীরা শুদ্ধতার প্রতীক হওয়ায় মাতৃরূপে ঈশ্বরের আরাধনার জন্য কুমারী কন্যাকে নির্বাচিত করা হয়। মূলত নারীর যথাযথ মর্যাদা অধিষ্ঠিত করতে কুমারী পূজা করা হয়। কুমারী প্রতীকে জগৎজননীর পূজায় পরম সৌভাগ্য লাভ হয়।

এদিকে কুমারী পূজা উপলক্ষে বুধবার ভোর থেকেই মন্দিরে ভক্তের ঢল নামে। কুমারী মাকে কাছ থেকে দেখতে এবং মায়ের কৃপা লাভে দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসেন নানা বয়সের নারী-পুরুষ।

আরও পড়ুন: হিন্দুদের তীর্থস্থানে নামাজ পড়ে ‘উস্কানিমূলক স্ট্যাটাস’, আটক সেই যুবক

হিন্দু শাস্ত্র অনুসারে মহাষ্টমীর দিন মানবকল্যাণের জন্য ১ থেকে ১৬ বছরের কুমারী কন্যাকে মনোনীত করা হয়। এদিন দেবী দুর্গার অপর কোনো নামে কুমারীর নামকরণ করা হয়।

বয়সভেদে কুমারীর নাম হয় ভিন্ন। এক বছর বয়সে সন্ধ্যা, দুইয়ে সরস্বতী, তিনে ত্রিধামূর্তি, চারে কালিকা, পাঁচে সুভগা, ছয়ে উমা, সাতে মালিনী, আটে কব্জিকা, নয়ে অপরাজিতা, দশে কালসন্ধর্ভা, এগারোয় রুদ্রাণী, বারোয় ভৈরবী, তেরোয় মহালক্ষ্মী, চৌদ্দয় পীঠনায়িকা, পনেরোয় ক্ষেত্রজ্ঞা এবং ষোল বছরে অম্বিকা বলা হয়ে থাকে।
এবার কুমারীর বয়স ৬ বছর হওয়ায় ‘উমা’ নামে পূজিত হয় প্রীতি ধর।

আলোকিত চট্টগ্রাম
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm