কিশোরী ধর্ষণ—২ যুবক গ্রেপ্তার

কিশোরী ধর্ষণের অভিযোগে কর্ণফুলী থানা পুলিশ বিশেষ অভিযান চালিয়ে এনাম ও শহিদুল ইসলাম নামে দুই যুবককে গ্রেপ্তার করেছে।

রোববার (১৭ অক্টোবর) রাতে কর্ণফুলী থানাধীন বন্দর এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

গ্রেপ্তার আসামিরা হলেন− আনোয়ারা উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের উত্তর পরুয়াপাড়া গ্রামের মৃত আবদুল মালেকের ছেলে মো. এনাম (২৫) এবং লোহাগাড়া উপজেলার পূর্ব হাজারবিঘা গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে শহিদুল ইসলাম (৩২)।

আরও পড়ুন : ধর্ষণ মামলা খেল ইউপি চেয়ারম্যান, তদন্ত গেল পিবিআইর হাতে

Thai Food

পুলিশ জানায়, গত শনিবার (১৬ অক্টোবর) রাত সাড়ে ৮টায় আনোয়ারা উপজেলার উত্তর বন্দর এলাকার একটি ভাড়া বাসায় চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে আটকে রেখে ধর্ষণ করে গ্রেপ্তার আসামিরা। ঘটনার পর স্থানীয়দের সহায়তায় দুই ধর্ষককে গ্রেপ্তার করে কর্ণফুলী থানা পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন মামলা দায়ের করে সোমবার আদালতে পাঠানো হয়েছে।

কিশোরীর পিতা বলেন, চাকরির সাক্ষাৎকারের কথা বলে শনিবার সকালে এনাম তার মেয়েকে ফোন করে কেইপিজেড এলাকায় নিয়ে যায়। এরপর বন্দরের একটি বাসায় নিয়ে আটকে রাখে। সন্ধ্যায় মেয়ে বাড়ি না ফেরায় খুঁজতে বের হয়ে জানতে পারি এসব ঘটনা। রাতে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মরিয়ম বেগমসহ স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় উত্তর বন্দর এলাকায় অভিযুক্ত শহিদুল ইসলামের ভাড়া বাসা থেকে মেয়েকে উদ্ধার করি। এ সময় মেয়ের অভিযোগের ভিত্তিতে স্থানীয়রা ধর্ষক এনাম ও শহীদুলকে আটক করে। পরে কর্ণফুলী থানা পুলিশের কাছে তাদেরকে হস্তান্তর করা হয়।

কর্ণফুলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে রোববার রাতে এনাম ও শহীদুল নামের দুই যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অভিযুক্তরা ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে। তাদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা হয়েছে। ভিকটিমকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে।

ইমরান/ডিসি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm