কর্ণফুলীতে মারামারি—রক্তাক্ত ৮, বাদ যায়নি স্কুলশিক্ষিকাও

চট্টগ্রামের কর্ণফুলীতে পূর্বশত্রুতার জের ধরে মারামারি ঘটনা ঘটেছে। এতে রক্তাক্ত হয়েছেন এক স্কুলশিক্ষিকাসহ ৮ জন।

জুলধা ইউনিয়নের পাইপের ঘোড়া এলাকার বাহার বাড়িতে বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় উভয়পক্ষ থানায় পাল্টাপাল্টি মামলা করেছেন।

হামলায় স্কুলশিক্ষিকা সুমি আকতার (২২), মো. ইলিয়াছ (৫৭), মো. রুবেল (৩০), জরিনা খাতুনসহ (৫০) উভয়পক্ষের ৮ জন আহত হন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি কর্ণফুলী উপজেলায় ডাকাতির প্রস্তুতিকালে একটি দেশীয় অস্ত্র, ৫ রাউন্ড গুলি ও চাকু উদ্ধার করে র‌্যাব-৭। অস্ত্রসহ আটক মামলার প্রধান আসামি সোহেলের পরিবার গত কয়েকদিন ধরে এলাকায় অপপ্রচার শুরু করলে উভয়পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হয়। সেই উত্তেজনা শেষপর্যন্ত সংঘর্ষে রূপ নেয়।

Thai Food

আরও পড়ুন: ‘রাতেই খুন’—লালখানবাজারে মাদক ব্যবসায়ীর মারামারিতে নিহত ১

সোহেলের ভাই রুবেল জানায়, প্রতিপক্ষরা ষড়যন্ত্র করে আমার ভাইকে র‌্যাব দিয়ে ফাঁসিয়েছে। তারাই আবার সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমাদের ওপর হামলা চালায়। দেশি অস্ত্রশস্ত্রসহ বসতঘরে ঢুকে মা, বোন, ভাইসহ আমাকে মেরে আহত করে।

আবদুর শুক্কুরের ছেলে মো. মনির হোসেন জানান, সোহেলের পরিবারের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে ভূমি নিয়ে বিরোধ চলছে। গ্রেপ্তারের জের ধরে হামলা চালিয়ে আমার ভাই সাজ্জাদ হোসেন হৃদয় (২০), দেলোয়ার হোসেন (২৫) ও আমার মা খুরশিদা বেগমকে (৪৮) মারধর করে আহত করে সোহেলের পরিবার। ঘটনার পর থানায় মামলা করেছি।

কর্ণফুলী থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ জানান, ঘটনার পর উভয়পক্ষ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। তদন্ত করে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ইমরান/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm