করোনা: বিশেষজ্ঞদের শঙ্কার পথেই চট্টগ্রাম

ঈদুল আজহার পর চট্টগ্রামে সংক্রমণ বাড়ার শঙ্কা করেছিলেন বিশেষজ্ঞরা। বিশেষজ্ঞদের সেই শঙ্কার পথেই এখন হাঁটছে চট্টগ্রাম। ঈদের পর চট্টগ্রামে হু হু করে বাড়ছে করোনা রোগী। একইসঙ্গে বাড়ছে মৃত্যুও।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্যমতে, গত ২২ জুলাই চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন ৪২৮ জন। ২৩ ও ২৪ জুলাই যথাক্রমে আক্রান্ত হন ৪৫১ ও ৩০১ জন।

কিন্তু কোরবানির ঈদের পর হঠাৎ দ্বিগুণ হয়ে যায় আক্রান্ত। গত ২৫ জুলাই চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৮০১ জন। গত সোমবার আক্রান্ত হন ৮৪৮ জন। আর মঙ্গলবার আক্রান্তের সংখ্যা চট্টগ্রাম ছাড়িয়ে যায় অতীতের সব রেকর্ড। এদিন আক্রান্ত হন ১ হাজার ৩১০ জন। অর্থাৎ একদিনের ব্যবধানে আক্রান্ত বেড়েছে ৪৬২ জন।

এদিকে মঙ্গলবার মৃত্যুতেও ছাড়িয়ে গেছে অতীতের সব রেকর্ড। এদিন চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ১৮ জনের মৃত্যু হয়। এর আগেরদিন সোমবার মৃত্যু হয়েছিল ১২ জনের। আর রোববার মৃত্যু হয় ১১ জনের।

এর আগে ১৪ জুলাই চট্টগ্রামে সর্বোচ্চ ১ হাজার ৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল। আর ২০ জুলাই সর্বোচ্চ ১৫ জন এবং ১৮ জুলাই ১১ জনের মৃত্যু হয়েছিল।

এদিকে চট্টগ্রামের হাসপাতালগুলোতে এখন করোনা রোগীর ভীষণ চাপ বেড়েছে। আইসিইউ তো দূরে থাকুক এখন বেসরকারি হাসপাতালে একটি কেবিন পাওয়াও কঠিন।

যোগাযোগ করা হলে নগরের পার্কভিউ হাসপাতালের জেনারেল ম্যানেজার তালুকদার জিয়াউর রহমান আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, আমাদের হাসপাতালে করোনার ৮৪টি কেবিনেই রোগী ভর্তি রয়েছে। ভর্তির আশায় অপেক্ষায় রয়েছেন আরও অনেক করোনা রোগী। ১২টি আইসিইউ বেডের একটিও খালি নেই। এরমধ্যেই দিনে গড়ে ১০ জন রোগীর স্বজন আইসিইউ বেডের জন্য যোগাযোগ করছেন৷

তিনি বলেন, করোনা রোগীর পাশাপাশি জেনারেল রোগীর চাপও বেড়েছে প্রচুর। জেনারেল ওয়ার্ডেও কোনো কেবিন ও সিট আপাতত খালি নেই।

মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় জানায়, চট্টগ্রামের ৩ হাজার ৩৮৯ নমুনা পরীক্ষায় ১ হাজার ৩১০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। একইসময়ে মারা গেছেন ১৮ জন করোনা রোগী। এর মধ্যে ৭ জন নগরের এবং ১১ জন উপজেলার বাসিন্দা।

কোরবানের ঈদের আগমুহূর্তে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন সেখ ফজলে রাব্বি শঙ্কাপ্রকাশ করে আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেছিলেন, ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে পশুরহাট ও বিভিন্ন স্টেশনে যেভাবে লোকসমাগম হয়েছে সংক্রমণে এর প্রভাব দেখা যাবে ঈদের পরে।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্যমতে, চট্টগ্রামে এখন পর্যন্ত ৭৭ হাজার ৫২১ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৫৮ হাজার ৩২৩ জন নগরের এবং ১৯ হাজার ১৯৮ জন উপজেলার বাসিন্দা।

এছাড়া করোনায় এ পর্যন্ত চট্টগ্রামে মারা গেছেন ৯১৫ জন। এর মধ্যে ৫৫৪ জন নগরের এবং ৩৬১ জন উপজেলার বাসিন্দা।

জানতে চাইলে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে ঈদের আগে থেকেই জনসাধারণকে সতর্ক করা হয়েছিল। কিন্তু স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে মানুষের মাঝে একরকম অসচেতনতা লক্ষ্য করছি প্রতিনিয়ত। এখন ঈদপরবর্তী সংক্রমণ আবার বাড়তে শুরু করেছে। প্রায় প্রতিদিনই এ সংখ্যা বাড়ছে। এভাবে বাড়তে থাকলে চিকিৎসা ব্যবস্থাপনায় সংকট দেখা দিতে পারে। তাই সবারই স্বাস্থ্যবিধি মেনে সচেতন ও সতর্ক হওয়া খুবই জরুরি।

আলোকিত চট্টগ্রাম

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm