৫০ হাজার নেতাকর্মী নিয়ে সমাবেশের আশা বিএনপির, পাল্টা কর্মসূচি যুবলীগের—কক্সবাজারে ১৪৪ ধারা জারি

কক্সবাজারে একই স্থানে বিএনপি-যুবলীগের পাল্টাপাল্টি সমাবেশ ডাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। পাল্টাপাল্টি সমাবেশের কারণে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থতি স্বাভাবিক রাখতে ১৪৪ ধারা জারি করা হয় বলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

রোববার (২ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় বিষয়টি নিশ্চিত করেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবু সুফিয়ান।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, সোমবার (৩ জানুয়ারি) ভোর থেকে মঙ্গলবার (৪ জানুয়ারি) সকাল পর্যন্ত কক্সবাজার শহরে অবস্থিত বিএনপি অফিস সংলগ্ন শহীদ স্মরণী সড়ক ও আশপাশের এলাকায় ১৪৪ ধারা থাকবে।

আরও পড়ুন: কক্সবাজারে বছরের ২ আলোচিত হত্যাকাণ্ড

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও বিদেশে চিকিৎসার দাবিতে কক্সবাজার শহীদ স্মরণী সড়কে সোমবার (৩ জানুয়ারি) দুপুর ১টায় সমাবেশের ডাকে কক্সবাজার জেলা বিএনপি। পরে একই স্থানে কক্সবাজার জেলা যুবলীগ পাল্টা সমাবেশের ডাক দেয়।

বিএনপির সমাবেশে যোগ দিতে ইতোমধ্যে কেন্দ্রীয় নেতারা কক্সবাজার পৌঁছেছেন বলে কক্সবাজার জেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শামীম আরা স্বপ্না জানিয়েছেন।

সমাবেশে কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।

রোববার বিকেল ৫টায় জেলা বিএনপির কার্যালয় এলাকা পরিদর্শন করে দেখা যায়, মঞ্চ তৈরির কাজে ব্যস্ত শতাধিক শ্রমিক। জড়ো হওয়া বিএনপির তৃণমূল নেতাকর্মীর মাঝেও ছিল উৎসাহ-উদ্দীপনা। জেলা বিএনপির কার্যালয় থেকে শহীদ মিনার এলাকা নেতাকর্মীদের ব্যানার ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে। জেলার ৯ উপজেলা থেকে ৫০ হাজার নেতাকর্মী সমাবেশে অংশগ্রহণ করবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন স্থানীয় নেতারা।

আরও পড়ুন: কক্সবাজারে পর্যটকদের নিরাপত্তায় ৭ সিদ্ধান্ত

এর আগে রোববার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় মৎস্যজীবী বিষয়ক সম্পাদক লুৎফুর রহমান কাজল সাংবাদিকদের জানান, আগামীকালের (সোমবার) সমাবেশকে ঘিরে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে প্রশাসন, আওয়ামী লীগসহ সকলে সহযোগিতা করবে এটাই প্রত্যাশা করছি।

প্রশাসনের কাছ থেকে কোনো বাধা পেয়েছেন কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে জবাবে লুৎফর রহমান কাজল বলেন, আমরা সমাবেশের জন্য পাবলিক লাইব্রেরি মাঠ, ঈদগাহ ময়দান, মুক্তিযোদ্ধা মাঠের অনুমতি চেয়েছিলাম। আমাদের সেখানে অনুমতি দেওয়া হয়নি। সমাবেশে হাজার হাজার জনতা সমবেত হবেন। তারপরও আমি আশা করছি সকলের সহযোগিতা পাব।

এদিকে সমাবেশকে ঘিরে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

বলরাম/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm