চক্রের চরিত্রহনন—চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন এমপি মোছলেম উদ্দিন

দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগে সভাপতি ও চট্টগ্রাম-৮ আসনের সাংসদ মোছলেম উদ্দিন আহমেদ অভিযোগ করেছেন, একটি চক্র তাঁর চরিত্রহননের জন্য মনোনয়ন বাণিজ্যের নামে মিথ্যা-ভিত্তিহীন তথ্য দিয়ে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে।

বুধবার (১২ জানুয়ার) চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের বঙ্গবন্ধু হলে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, সারাজীবন দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য কাজ করছি। সবসময় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছি। কিন্তু দুঃখের বিষয় সম্প্রতি একটি চক্র আমার চরিত্রহননের জন্য মনোনয়ন বাণিজ্যের নামে মিথ্যা-ভিত্তিহীন তথ্য দিয়ে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন: ‘সিআরবি রক্ষা আন্দোলন’—বিস্ফোরক মন্তব্য সাংসদ মোছলেম উদ্দীনের

মোছলেম উদ্দিন চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেন, যদি এমন কিছু প্রমাণ করতে পারে তাহলে যেকেনো শাস্তি আমি মাথা পেতে নিব।

তিনি আক্ষেপ করে বলেন, আমরা সারাজীবন দেশের মানুষের জন্য ও দেশের কল্যাণের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। তারপরও আমাদের চরিত্রহননের চেষ্টা করে যাচ্ছে কিছু মানুষ। আমাদের ভুলভ্রান্তি নেই এটা বলবো না। দলীয় দৃষ্টিকোণ থেকে আমাদের কিছু কার্যপরিধি আছে। তা চাইলেও সবসময় জনসম্মুখে প্রকাশ করা যায় না, বা বলাও যায় না।

মাঝে মাঝে বিভ্রান্তির বেড়াজালে পড়তে হয় মন্তব্য করে তিনি বলেন, সম্প্রতি দেশের ইউনিয়ন নির্বাচনে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষমতা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে স্থানীয় সরকার ও মনোনয়ন বোর্ড এবং কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের। ওনারা যাচাই-বাছাই করে মনোনয়ন দিয়ে থাকেন।

তিনি আরও বলেন, আমাদেরকে সেখান থেকে যে নির্দেশনা দেওয়া হয়। সেই নির্দেশনা অনুযায়ী মনোনয়নের জন্য নামের তালিকা পাঠানো হয়। কোনো জায়গায় আমরা একজনের নাম পাঠিয়েছি। ওই একজনকে মনোনয়ন দিয়েছে। আবার কোনো কোনো জায়গায় কেন্দ্র পরিবর্তন করে অন্য কাউকেও দিয়েছে। কিন্তু এবার একটা নিয়ম করে দিয়েছে। তৃণমূল থেকে যাচাই করে কমপক্ষে তিনজনের নাম পাঠানো। সেখান থেকে স্থানীয় সরকার ও মনোনয়ন বোর্ড প্রার্থী দিয়ে থাকেন। আর আমরা যারা এখানে দায়িত্বে আছি, তারা সবাই যাচাই বাছাই করে কিছু কিছু জায়গায় তিনজনের নাম পাঠিয়েছি। এমনকি কিছু জায়গায় সাত জনের নামও পাঠিয়েছি। সেখান থেকে মনোনয়ন বোর্ড যাকে দিয়েছেন তিনিই নির্বাচন করেছেন। আর মনোনয়নের নাম জমা দেওয়ার সময় প্রার্থীরা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, যদি মনোনয়ন না পান তাহলে তারাও নৌকার পক্ষে কাজ করে যাবে।

আরও পড়ুন: যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ নেতার মামলা

মোছলেম উদ্দিন বলেন, এককভাবে কারো জন্য সুপারিশ করা বা অনৈতিকভাবে মনোনয়ন নিয়ে দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। আর যারা আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে সে বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। কেউ যদি আমার নাম দিয়ে অনৈতিক কাজ করে এজন্য তো আমি দায়ী নয়।

সংবাদ সম্মেলনে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, সহসভাপতি মোতাহার হোসেন চৌধুরী, কুতুব উদ্দিন, পৌর মেয়র জহুরুল ইসলামসহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

এএইচ/আলোকিত চট্টগ্রাম

2 মন্তব্য
  1. Mehmed Emu বলেছেন

    শ্রদ্ধেয় মোসলেম ভাইয়ের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগে অবাক হওনি মোটেও। বরং এই ঘটনা সত্য হলেও হতে পারে। দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের কমিটির ক্ষেত্রে সেটার প্রমান পেয়েছি। সম্প্রতি সিআরবি তে হাসপাতাল করার বিষয়ে উনার টাকার গন্ধে পল্টি নিতেও দেখেছি।

    সুতরাং অবাক হওয়ার কিছুই নেই।

  2. সৈয়দ মোজাম্মেল বলেছেন

    যদি তৃনমূলের মতামত নেওয়া হয় তাহলে পটিয়ার কয়টি ইউনিয়নে নেওয়া হয়েছে একটু জানতে ইচ্ছা করে। মানুষ এখন সব বুঝে, শত সাংবাদিক সম্মেলন করে মানুষকে আর বুঝানো যাবেনা,মাননীয় এমপি মহোদয়।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm