রাউজান কলেজের শিক্ষার্থীদের উসকে দিচ্ছেন শিক্ষক হাবিবুল্লাহ—আতিকউল্লাহ

রাউজান সরকারি কলেজের দুই শিক্ষক ও এক কর্মচারীকে অপসারণে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি জোনায়েদ কবির সোহাগকে স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে রাউজান পৌরসভার মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ, রাউজান উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা চৌধুরী মনিরুজ্জমানকেও।

রোববার (২৮ নভেম্বর) দুপুরে কলেজের শিক্ষার্থীরা পৃথকভাবে এ স্মারকলিপি দেন। এর আগে বিক্ষোভ সমাবেশ করেন শিক্ষার্থীরা।

আরও পড়ুন: ইউটার্নে শিক্ষক নিহত, প্রাইভেট কার আটক হলেও চালক উধাও

সমাবেশে শিক্ষার্থীরা বলেন, শিক্ষক হাবিবুল্লাহ, আতিকউল্লাহ ও কর্মচারী এনামুল হক নানা অনিয়ম, সরকারবিরোধী কার্যক্রম ও জামায়াত ইসলামীর কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত। অবিলম্বে তাদের চাকরি থেকে অপসারণ করে রাউজান সরকারি কলেজকে জামায়াতমুক্ত করতে হবে। না হলে শিক্ষার্থীরা কঠোর কর্মসূচি পালন করবে।

স্মারকলিপিতে বলা হয় দুই শিক্ষক হাবিবুল্লাহ ও আতিকউল্লাহ কলেজে শিক্ষকতার আড়ালে সরকারবিরোধী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত। কর্মচারী এনামুলসকহ ওই দুই শিক্ষক জামায়াত ইসলামীর সঙ্গে সম্পৃক্ততা রেখে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করছে। তাঁরা কলেজের লাইব্রেরিতে হেফাজত ইসলামী ও জঙ্গি তৎপরতা সম্পর্কিত বই রেখেছেন। পাঠদানের সময়ে সরকারবিরোধী বক্তব্য দিয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীদের সরকারের বিরুদ্ধে উসকে দেওয়ার কাজ করছেন। তাই অভিযুক্ত দুই শিক্ষক ও কর্মচারীকে অপসারণ করতে হবে।

স্মারকলিপি দেওয়ার সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সৌমিত্র পালিত, নিঝুম বড়ুয়া, আবু ইউছুপ, সাহেদা আকতারসহ শতাধিক শিক্ষার্থী ।

আরও পড়ুন: ‘পাঠদান বন্ধ’ রেখে—স্কুল চলাকালীন এমপির দুই অনুষ্ঠানে প্রধান শিক্ষক!

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি জোনায়েদ কবির সোহাগ আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, শিক্ষার্থীদের অভিযোগ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, এর আগে বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) বিকালে শিক্ষক হাবিবুল্লাহ, আতিকউল্লাহ ও কর্মচারী এনামুল হকের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের হয়রানির প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করে রাউজান সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা।

শফি/আরবি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm