ইসির সাবধানকে পাত্তা দিচ্ছেন না সাংসদ মোছলেম উদ্দিন

ইসির সাবধানকে পাত্তা দিচ্ছেন না চট্টগ্রাম-৮ আসনের সাংসদ মোছলেম উদ্দিন আহমদ। ইসির চিঠি উপেক্ষা করেই তিনি এলাকায় অবস্থান করছেন। যোগ দিচ্ছেন নানা অনুষ্ঠানে।

এদিকে চরণদ্বীপে প্রতীক বরাদ্দের আগে প্রচারণা এবং শোডাউন করায় দুই চেয়ারম্যান ও দুই মেম্বার প্রার্থীকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

মঙ্গলবার (২৮ ডিসেম্বর) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) তাহমিনা আকতারের ভ্রাম্যমাণ আদালত তাঁদের ২৩ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

দুই চেয়ারম্যান প্রার্থী হলেন- চরণদ্বীপ ইউনিয়নের শামসুল আলম ও আহলা করলডেঙ্গা ইউনিয়নের মনছুর আহাম্মদ বাবুল। অপর দুজন সারোয়াতলীর সাধারণ সদস্য (মেম্বার) প্রার্থী।

আরও পড়ুন : জাফর আলমের পর এবার মোছলেম উদ্দিনকে নির্বাচন কমিশনের চিঠি

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) তাহমিনা আকতার আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, চরণদ্বীপ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী শামসুল আলমকে প্রতীক বরাদ্দের আগে প্রচারণা, আহলা করলডেঙ্গা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী মনছুর আহাম্মদ বাবুল মোটরসাইকেল শোডাউন ও সারোয়াতলীতে দুই সাধারণ সদস্য প্রার্থীকে দেয়ালে পোস্টার সাঁটানোর দায়ে ২৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এদিকে স্থানীয় সাংসদকে নির্বাচনি এলাকা ত্যাগ করার জন্য নির্বাচন কমিশন চিঠি দিলেও তা উপেক্ষা করে নিজ এলাকায় অবস্থান করেছেন চট্টগ্রাম-৮ আসনের সাংসদ মোছলেম উদ্দিন আহমদ। তিনি চরণদ্বীপ ইউপি নির্বাচনে প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার (২৮ডিসেম্বর) সকালে তিনি উপজেলার চরণদ্বীপ ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা মো. আবদুল লতিফের বাড়িতে এক বৈঠকে অংশ নেন। পরে সাড়ে ১১টার দিকে সাংসদ উপজেলা সদরের গোমদন্ডী পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে হলরুমে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন।

বিকালে তিনি উপজেলা পরিষদ চত্বরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ উপলক্ষে আয়োজিত বিজ্ঞান মেলার সমাপনীতে বক্তব্য রাখেন।

গত ২৫ ডিসেম্বর নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের উপসচিব মো. আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে সাংসদকে অবিলম্বে এলাকা ত্যাগ করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়।

এর আগে সাংসদ আচরণবিধি না মেনে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর ব্যানারে উপজেলার পোপাদিয়া, শাকপুরা, কড়লডেঙ্গা, আমুচিয়া ও সারোয়াতলীতে ইউপি নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ নেন। এতে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি।

যোগাযোগ করা হলে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. নুরুল ইসলাম আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, এলাকা ত্যাগ করার জন্য ইসির নির্দেশনার চিঠি সাংসদের কাছে গত শনিবার পৌঁছানো হয়েছে। এরপরও যদি তিনি এলাকায় অবস্থান নেন তবে তা বিধি পরিপন্থী।

মাসুদ/ডিসি
আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm