আতঙ্কের জনপদ খাগরিয়া, পুলিশকেও চ্যালেঞ্জ দেলোয়ার—ছাদেক গ্রুপের

৩ এসআই—১ কনস্টেবল গুলিবিদ্ধ

দিনদুপুরে অভিযানে পালিয়ে গেল আসামি। রাতের আঁধারে ফের অভিযানে নামে পুলিশ। এবার অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার দিল মোহাম্মদ। কিন্তু তাকে নিয়ে যাওয়া এত সহজ নয়। হঠাৎ পুলিশকে লক্ষ্য করে চলল টানা গুলিবর্ষণ। সন্ত্রাসীদের গুলিতে রক্তাক্ত চার পুলিশ, স্থানীয় মেম্বারসহ অন্তত ৭ জন।

এ ঘটনা শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টায় সাতকানিয়া উপজেলার খাগরিয়া ইউনিয়নের মোহাম্মদখালি এলাকার। যেখানে অভিযানে গেলে রক্তাক্ত হামলার শিকার হতে হয় সাতকানিয়া থানা পুলিশকে।

অভিযানে অস্ত্রসহ ২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা হলেন- সাতকানিয়া থানার খাগরিয়া ইউনিয়নের মোহাম্মদখালি ৪ নম্বর ওয়ার্ডের হারে মিয়ার ছেলে দিল মোহাম্মদ ও একই এলাকার মোতালব চেয়ারম্যান বাড়ির শামসুল ইসলামের ছেলে আক্তার হোসেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সন্ধ্যা ৭টার দিকে অভিযান শুরু করে পুলিশ। এসময় দিল মোহাম্মদকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করে। তাকে নিয়ে যাওয়ার সময় দেলোয়ার ও ছাদেক বাহিনী পুলিশের ওপর হামলা চালায়। টানা গুলি করতে থাকে তারা। এসময় পুলিশসহ স্থানীয় বেশ কয়েকজন গুলিবিদ্ধ হন। এরপর অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে এলাকা ঘিরে রাখা হয়। অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করা হয় মাদক কারবারি দেলোয়ারের বড় ভাই আক্তার হোসেনকে। মধ্যরাত পর্যন্ত চলে পুলিশের অভিযান।

আরও পড়ুন : সাতকানিয়ায় নির্বাচন—শেষ রক্ষা হলো না অস্ত্র উঁচিয়ে আতঙ্ক ছড়ানো সেই দুই যুবকের

স্থানীয় মেম্বার শফিকুর রহমান বলেন, পুলিশের অভিযানে দিল মোহাম্মদ অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার হওয়ার পর তাকে ছিনিয়ে নিতে হামলা চালানো হয়। ছাদেক ও দেলোয়ার বাহিনীর লোকজন পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে। এসময় তিন এসআই ও এক কনেস্টেবল গুলিবিদ্ধ হন। আমিও গুলিবিদ্ধ হই। এছাড়া এলাকার আরো বেশ কয়েকজন আহত হন। পুলিশ দিল মোহাম্মদ ও আক্তার হোসেনকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে। তারা দেলোয়ার ও ছাদেকের সঙ্গে ডাকাতিসহ এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালান।

বিষয়টি নিশ্চিত করে সাতকানিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রিটন সরকার আলোকিত চট্টগ্রামকে বলেন, আসামি গ্রেপ্তার করার পর দুর্বৃত্তরা হামলা চালায়। এসময় চার পুলিশ সদস্য গুলিবিদ্ধ হয়। তারা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছে।

এর আগে ৪ জুন রাতে সাতকানিয়ার খাগরিয়া ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিমপাড়ায় সাতটি বাড়ি ও একটি দোকান লুট করে দেলোয়ার ও ছাদেক বাহিনী। এ ঘটনায় স্থানীয় থানায় মামলা হয়।

জানা গেছে, দেলোয়ার ও ছাদেকের হাতেই খুন হন ওই ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বেলাল উদ্দিন ও বদি আলম। খুন, মাদক, অস্ত্র মামলাসহ ডজনখানেক মামলার আসামি দেলোয়ার ও ছাদেক।

এর আগে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি সৈয়দ মিয়া জানান, দেলোয়ার ও ছাদেক গ্রুপের মাদক বাণিজ্য ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে বাঁধা দেওয়ায় তিনিসহ এলাকার মেম্বার তাদের কাছে জিম্মি। তাদের দাবি করা চাঁদা দিতে না পারায় নিজের জমির ফসলও কাটতে পারছেন না সৈয়দ মিয়া।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দেলোয়ার হোসেন খাগরিয়া ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড মোতালব চেয়ারম্যান বাড়ির শামসুল ইসলামের ছেলে। ছাদেকও একই এলাকার পশ্চিমপাড়ার আবদুল গফুরের ছেলে। ছাদেকের ছোট বোনের স্বামী দেলোয়ার।

আলোকিত চট্টগ্রাম

যখনই ঘটনা, তখনই আপডেট পেতে, গ্রাহক হয়ে যান এখনই!