ধরে ধরে হাঁটাতে হয় অভিনেত্রী আনোয়ারাকে, চিনতে পারছেন না কাউকে

পরিবারের বাইরে কাউকে চিনতে পারছেন না। কয়েকদিন আগে নিজের মেয়ে চলচ্চিত্র অভিনেত্রী মুক্তিকেও চিনতে পারেননি! চোখেও এখন সবকিছু ঝাপসা দেখছেন। ধরে ধরে তাঁকে হাঁটাতে হয়।

এমন পরিস্থিতি চলচ্চিত্র ও টেলিভিশনের জ্যেষ্ঠ অভিনয়শিল্পী আনোয়ারা বেগমের। ১১ মার্চ রাতে হঠাৎ মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হলে রাজধানীর একটি হাসপাতালে তাঁকে ভর্তি করা হয়। টানা ১০ দিন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়ার পর দুদিন আগে তিনি বাসায় ফিরেন।

আরও পড়ুন: হাঁটতে পারেন না—কানেও শুনেন না, কেউ খবর নেন না প্রবীর মিত্রের

এদিকে আগামীকাল বুধবার ঢাকার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে হল অব ফেম মিলনায়তনে হবে ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০২০’–এর আসর। এবার যুগ্মভাবে আজীবন সম্মাননা দেওয়া হবে আনোয়ারা বেগম ও রাইসুল ইসলাম আসাদকে। পুরস্কার নিতে ইতোমধ্যে সুদূর আমেরিকা থেকে ঢাকায় ফিরেছেন আসাদ। কিন্তু অসুস্থতার কারণে সশরীরে আর থাকা হচ্ছে না আনোয়ারার। তাঁর হয়ে পুরস্কার নিবেন মেয়ে মুক্তি।

অভিনেত্রী মুক্তি বলেন, তারা পরিবারের সবাই মিলে কক্সবাজার বেড়াতে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে ঢাকায় ফেরার তিনদিনের মাথায় ১১ মার্চ রাতে ব্রেন স্ট্রোক করেন আনোয়ারা। সেদিন রাতেই তাঁকে বনশ্রীর একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়।

আরও পড়ুন: মধ্যরাতে বন্ধুসহ আটক মডেল—অভিনেত্রী স্পর্শিয়া

তিনি বলেন, স্ট্রোক করার পর কয়েকদিন তো আম্মা আমাকেই চিনতে পারেননি। এখন আমাকে চিনছেন। কিন্তু আত্মীয়স্বজন কেউ এসে নাম বললেও তাদের চিনতে পারছেন না। চোখে ঝাপসা দেখছেন। ধরে ধরে হাঁটাতে হয়। কিছু দূর হাঁটলে দুর্বল হয়ে পড়েন। সবাই আম্মার জন্য দোয়া করবেন।

আলোকিত চট্টগ্রাম

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।

ksrm