‘অভিনব কৌশল’ অ্যাম্বুলেন্সে রোগী সেজে যাত্রী, আটকালেন ম্যাজিস্ট্রেট

আনোয়ারা হাসপাতাল ব্যবস্থা কমিটির সদস্য নুরুল আবছার তালুকদার তার অসুস্থ পিতা আবুল কাশেমকে (৭০) নিয়ে এসেছিলেন হাসপাতালে। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে যখন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নেওয়ার প্রয়োজন ঠিক তখনই আনোয়ারা হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স চালক আতাউর রহমান গাড়ি নিয়ে লাপাত্তা।

নানান অজুহাতে চমেক হাসাপতালে যেতে না চাওয়া আতাউর রহমান তখন ব্যস্ত অ্যাম্বুলেন্স দিয়ে দ্বিগুণ ভাড়ায় যাত্রী পরিবহনে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) দুপুরে কর্ণফুলীর মইজ্জ্যাটেক এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের কাছে আটক হন তিনি।

কর্ণফুলী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আনোয়ারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অ্যাম্বুলেন্স চালক আতাউরকে আটকের পাশাপাশি করেছেন ১ হাজার টাকা জরিমানা।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুকান্ত সাহা বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে বন্ধ রয়েছে গণপরিবহন। এ সুযোগে অতিরিক্ত ভাড়ায় ৮ জন যাত্রী বহন করেছিল সরকারি হাসপাতালের এই অ্যাম্বুলেন্সটি। সরকারের নিদের্শনা অমান্য করে রোগী বহনকারী আনোয়ারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অ্যাম্বুলেন্স যাত্রী বহন করায় এ জরিমানা করা হয়েছে।

অ্যাম্বুলেন্সটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং আটক রয়েছে চালক। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখাতে না পারলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আনোয়ারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু জাহিদ মুহাম্মদ সাইফুদ্দিন বলেন, যাত্রী নিয়ে শহরে যাওয়ার অভিযোগে হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স চালককে জরিমানা করার বিষয়টি শুনেছি। এ বিষয়ে চট্টগ্রাম সির্ভিল সার্জন মহোদয়ের কাছে আবেদন করা হবে।

ইমরান/ডিসি

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।

ksrm