অন্ধকারে আলো পেলেন শেলি

আনোয়ারায় ভিটেহারা নুরুছাফার মৃত্যুর পর স্ত্রী শেলি আকতার যখন চোখমুখে ‘অন্ধকার’ দেখছিলেন ঠিক তখনই আলোর মশাল হাতে নিয়ে হাজির হয় আনোয়ারা থানা পুলিশ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার ‘মুজিববর্ষের অঙ্গীকার’ ও পুলিশের উদ্যোগে হতদরিদ্র শেলি পেলেন এককাঠা জমিতে রেজিস্ট্রি করা তিন কক্ষের ঘর!

রোববার (১০ এপ্রিল) সকাল ১১টায় মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রতিটি থানায় স্থাপিত নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী সার্ভিস ডেস্ক এবং গৃহহীন পরিবারের জন্য নির্মিত গৃহ হস্থান্তর কার্যক্রম ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ও আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদসহ সরকারের দপ্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন: আনোয়ারায় রান্নাঘর টয়লেট বারান্দাসহ ২ বেডের ঘর পাচ্ছে ১৩০ পরিবার

থানা সূত্রে জানায়, সুখের আশায় শেলি বিয়ে করেন বারখাইন ইউনিয়নের শেলকাটা এলাকার গৃহহীন নুরুছাফাকে। কিন্তু অল্প বয়সেই হারান স্বামীকে। ২৭ বছর বয়সে শেলি আকতারের অভাব-অনটনের সংসারে এক মেয়ে নিয়ে কোনোরকম দিনযাপন করছিলেন। এ সময়ে শেলির দরজায় আলোর মশাল হাতে নিয়ে হাজির হয় আনোয়ারা থানা পুলিশ।

উপজেলার বারখাইন ইউনিয়নের শেলকাটা গ্রামে গৃহহীন শেলি আকতারকে স্থানীয় দানশীল ব্যক্তিদের সহায়তায় দেওয়া হয় এক কাঠা জমি। রেজিস্ট্রি করে দেওয়া সেই জমিতে এবার নির্মিত হয়েছেন তিন কক্ষের ঘর। দৃষ্টিনন্দন ও ভূমিকম্প সহনশীল আধুনিক এ ঘরটি তাপপ্রতিরোধী চালযুক্ত। রয়েছে পৃথক টয়লেট ও কিচেন। এছাড়া টিউবওয়েল, বৈদ্যুতিক ওয়্যারিং, লাইট, ফ্যান, পরিবেশবান্ধব সাশ্রয়ী চুলাতো রয়েছেই।

আরও পড়ুন: ভোরের আলো ফুটতেই গঙ্গাঘাটে বারুণী স্নানে পুণ্যার্থীর ঢল

আনোয়ারা থানার অফিসার ইনচার্জ এসএম দিদারুল ইসলাম সিকদার বলেন, ‘পুলিশের পক্ষ থেকে সরকারিভাবে ও স্থানীয় দানশীল ব্যক্তিদের সহযোগিতায় এক কাঠা জমিতে দৃষ্টিনন্দন তিন কক্ষের বাড়িটি নিমার্ণ করা হয়েছে। এলাকাবাসীর সহায়তার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

এদিকে আজ (রোববার) সকালে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হন আনোয়ারা থানার সহকারী পুলিশ সুপার এসপি হুমায়ূন করিব, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম দিদারুল ইসলাম এবং ওসি তদন্ত সৈয়দ ওমর।

ইমরান/এসআই

মন্তব্য নেওয়া বন্ধ।

ksrm